1. admin@nayaalo.com : Ashrafhabib :
  2. nayaalo.com@gmail.com : News Desk : News Desk
২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় মরে গেলেই ভাল হতো! - Nayaalo
শিরোনাম
তৃতীয়বারের মতো ক্রিকেট বোর্ডের দায়িত্ব পাচ্ছেন নাজমুল হাসান পাপন। তরুন নির্মাতা পার্থিব মামুন পরিচালিত ‘বউ তুমি আমার’ ভৈরবের বিএনপি নেতা আঙ্গুরের হোটেল আল জিহাদে পতিতা ব্যবসা জব্দ করলো পুলিশ! কিশোরগঞ্জে ডা.জালাল উদ্দিন আহমেদ সিভিল সার্জন পদে পদন্নোতি হওয়ায় ফুলেল শুভেচ্ছা। চাঁদপুর জেলা কমিটি কেন্দ্রীয় যুব কমান্ড ঘোষণা। ভৈরব পদ্মা জেনারেল হাসপাতালের পক্ষ থেকে ডাঃজালাল উদ্দিন আহমদকে ফুলেল শুভেচ্ছা। কিশোরগঞ্জ ভৈরবে শেখ হাসিনা ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন। কিশোরগঞ্জ ভৈরবে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ এর আনন্দঘন লঞ্চ ভ্রমণ। কিশোরগঞ্জ ভৈরবে সাবেক পৌর মেয়রের পিতার জানাজা অনুষ্ঠিত। কিশোরগঞ্জ ভৈরবে শিশুদের কবিতা ও আবৃতি ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরষ্কার বিতরণ।

২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় মরে গেলেই ভাল হতো!

  • Update Time : শনিবার, ২১ আগস্ট, ২০২১
  • ১৪৬ Time View

আশরাফুল আলম:

কিশোরগঞ্জ ভৈরব উপজেলার কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নের আকবরনগর (নয়াহাটি) গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দিন মেম্বারের ছেলে মোঃনাজমুল হাসান নাজিম সাধারণ সম্পাদক,২১ আগস্ট বাংলাদেশ(আহত,নিহত)কেন্দ্রীয় সংগঠন,তার শরীরে স্প্লিন্টারের ব্যথা আর যন্ত্রণা নিয়ে আজও দুর্বিসহ জীবন কাটাচ্ছেন । তিনি বলেন ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের জনসভায় ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় তিনি গুরুতর আহত হন। ১৪ বছর ধরে তিনি প্রতিদিন শরীরে ব্যথা যন্ত্রণা নিয়ে কাতরাচ্ছেন । এই ব্যথা আর কষ্ট সহ্য করার মতো নয়। তাই তার মনে হয় সেদিন মরে গেলেই ভালো হতো!

নিজ বাড়িতে বসে অনেক দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে কথাগুলো বলেন নাজিম উদ্দিন। পরিবারে মা, স্ত্রী আর তিন সন্তান নিয়ে খুবই কষ্টে দিন কাটছে তার। শরীরে এখনো অসংখ্য স্প্লিন্টার রয়ে গেছে তার, এজন্য আরও কয়েকটি অপারেশন করা প্রয়োজন। কিন্তু আর্থিক অভাব অনটনে অপারেশন করতে পারছেন না বলে জানান তিনি।

ঘটনার দিন বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামীলীগের সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন ২২ জন এবং আহত হন কয়েকশ। তিনি আওয়ামীলীগ কর্মী প্রিয় নেত্রী আইভি রহমানের ওপর গ্রেনেড পড়লে তাকে বাচাঁতে এগিয়ে যান। এসময় একটু সামনে গেলেই নিজের শরীরের পা ও বুকে গ্রেনেড পড়ে তিনিও গুরুতর আহত হন। পরে লোকজন তাকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। এরপর আওয়ামীলীগ নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহায়তায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতের পিয়ারলেস হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। তিন মাস চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে আসেন তিনি। তখন ডাক্তাররা বলেছিলেন শরীরে থাকা আরও স্প্লিন্টার অপসারণ করতে পরবর্তী সময়ে আরও দুই একবার অপারেশন করতে হবে। কিন্তু অর্থের অভাবে এখনো অপারেশন করতে পারছেন না জানালেন তিনি।

ভাগ্যক্রমে সেদিন বেঁচে গেলেও তিনি এখনো পুরোপুরি সুস্থ না হওয়াই শরীরে স্প্লিন্টারের যন্ত্রণা নিয়ে দুর্বিসহ দিন কাটাচ্ছেন। এখনো প্রতিদিন তার ঔষধ খেতে হয়। চিকিৎসার জন্য ব্যয়ভার বহন করতে গিয়ে তিনি সহায় সম্বল হারিয়েছেন। পরিবার নিয়ে অনেক দুঃখে কষ্টে দিন কাটছে তার।

তিনি দুঃখ বলেন ‘সরকার এখন আর আমাদের খবর রাখে না।’ ১৪ বছর অতিবাহিত হলেও এখনো ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার বিচার না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। প্রকৃত অপরাধীদের দ্রুত বিচার হবে সেটাই প্রত্যাশা করেন মোঃনাজমুল হাসান নাজিম।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 নায়াআলো ডটকম
Site Customized By NewsTech.Com