1. admin@nayaalo.com : Ashrafhabib :
  2. nayaalo.com@gmail.com : News Desk : News Desk
২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় মরে গেলেই ভাল হতো! - Nayaalo
শিরোনাম
ভৈরবে সরকারি ও কবরস্থানের গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ! ডিবি প্রধান হলেন কিশোরগঞ্জের মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ। ভৈরব সরকারি চাকরিজীবী ঐক্য পরিষদের বার্ষিক সভায় পুনরায় সভাপতি নির্বাচিত গোলাম মোস্তফা, নতুন সাধারণ সম্পাদক শফিউল্লাহ তপন ভৈরবে ইউনাইটেড হাসপাতালে নার্সের রহস্যজনক মৃত্যু,স্বজনদের দাবী পরিকল্পিত হত্যা! ইতালি প্রবাসী মোবারক হোসেনের পক্ষ থেকে ভৈরবে নগদ অর্থ প্রদান। বন্যার্তদের পাশে বাংলাদেশ ডেন্টাল পরিষদ। ভৈরবে বিশ্ব রক্ত দাতা দিবসে র‌্যালী আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে পালিত। ভৈরব-কুলিয়ারচরে নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা ভৈরবে কেন্দ্রীয় যুব কমান্ড এর সভাপতি নজরুল বেপারীর জন্মদিন পালিত। ভৈরবে নানা আয়োজনে যায়যায়দিনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত।

২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় মরে গেলেই ভাল হতো!

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ২১ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৪৮ জন দেখেছেন

আশরাফুল আলম:

কিশোরগঞ্জ ভৈরব উপজেলার কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নের আকবরনগর (নয়াহাটি) গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দিন মেম্বারের ছেলে মোঃনাজমুল হাসান নাজিম সাধারণ সম্পাদক,২১ আগস্ট বাংলাদেশ(আহত,নিহত)কেন্দ্রীয় সংগঠন,তার শরীরে স্প্লিন্টারের ব্যথা আর যন্ত্রণা নিয়ে আজও দুর্বিসহ জীবন কাটাচ্ছেন । তিনি বলেন ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের জনসভায় ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় তিনি গুরুতর আহত হন। ১৪ বছর ধরে তিনি প্রতিদিন শরীরে ব্যথা যন্ত্রণা নিয়ে কাতরাচ্ছেন । এই ব্যথা আর কষ্ট সহ্য করার মতো নয়। তাই তার মনে হয় সেদিন মরে গেলেই ভালো হতো!

নিজ বাড়িতে বসে অনেক দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে কথাগুলো বলেন নাজিম উদ্দিন। পরিবারে মা, স্ত্রী আর তিন সন্তান নিয়ে খুবই কষ্টে দিন কাটছে তার। শরীরে এখনো অসংখ্য স্প্লিন্টার রয়ে গেছে তার, এজন্য আরও কয়েকটি অপারেশন করা প্রয়োজন। কিন্তু আর্থিক অভাব অনটনে অপারেশন করতে পারছেন না বলে জানান তিনি।

ঘটনার দিন বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামীলীগের সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন ২২ জন এবং আহত হন কয়েকশ। তিনি আওয়ামীলীগ কর্মী প্রিয় নেত্রী আইভি রহমানের ওপর গ্রেনেড পড়লে তাকে বাচাঁতে এগিয়ে যান। এসময় একটু সামনে গেলেই নিজের শরীরের পা ও বুকে গ্রেনেড পড়ে তিনিও গুরুতর আহত হন। পরে লোকজন তাকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। এরপর আওয়ামীলীগ নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহায়তায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতের পিয়ারলেস হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। তিন মাস চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে আসেন তিনি। তখন ডাক্তাররা বলেছিলেন শরীরে থাকা আরও স্প্লিন্টার অপসারণ করতে পরবর্তী সময়ে আরও দুই একবার অপারেশন করতে হবে। কিন্তু অর্থের অভাবে এখনো অপারেশন করতে পারছেন না জানালেন তিনি।

ভাগ্যক্রমে সেদিন বেঁচে গেলেও তিনি এখনো পুরোপুরি সুস্থ না হওয়াই শরীরে স্প্লিন্টারের যন্ত্রণা নিয়ে দুর্বিসহ দিন কাটাচ্ছেন। এখনো প্রতিদিন তার ঔষধ খেতে হয়। চিকিৎসার জন্য ব্যয়ভার বহন করতে গিয়ে তিনি সহায় সম্বল হারিয়েছেন। পরিবার নিয়ে অনেক দুঃখে কষ্টে দিন কাটছে তার।

তিনি দুঃখ বলেন ‘সরকার এখন আর আমাদের খবর রাখে না।’ ১৪ বছর অতিবাহিত হলেও এখনো ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার বিচার না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। প্রকৃত অপরাধীদের দ্রুত বিচার হবে সেটাই প্রত্যাশা করেন মোঃনাজমুল হাসান নাজিম।

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর...
© All rights reserved © 2022 নায়াআলো ডটকম
Developed By HM.SHAMSUDDIN