শুক্রবার, ০৭ অগাস্ট ২০২০, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন

লেদু বাহিনী ও ভূয়া সাংবাদিক মাজেদুল-বিবি মরিয়ম সক্রিয়

  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই, ২০২০
  • ১৭৯ বার পড়া হয়েছে

চট্টগ্রামে কিশোরী ধর্ষণ :

আবারো উত্তপ্ত হচ্ছে বায়েজিদ থানা এলাকা
চট্টগ্রাম ব্যুরো : চট্টগ্রামের বায়েজিদে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনাকে কেন্দ্র করে আবারো উত্তপ্ত হয়ে উঠছে ক্রাইমজোনখ্যাত বায়েজিদ বোস্তামী থানার বিভিন্ন এলাকা। জানা যায়, গত ২৭ জুন চট্টগ্রামের বায়েজিদ বোস্তামী থানাধীন, বাংলাবাজার সংলগ্ন ডেবারপাড় এলাকায় এক পোশাক শ্রমিককে অপহরণের পর নির্জন পাহাড়ে নিয়ে ধর্ষণ করেছে স্বঘোষিত আওয়ামী বাস্তুহারা লীগ নেতা আনোয়ার হোসেন ওরফে সোর্স আনোয়ার। ৯৯৯-এ খবর পেয়ে পুলিশ উক্ত এলাকায় অভিযান চালিয়ে ধর্ষক সোর্স আনোয়ার ও তার সহযোগী হেলালকে গ্রেফতার করেছে। ১৬ বছর বয়সী কিশোরীকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করে পুলিশ। এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে বায়েজিদ বোস্তামী থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে সোর্স আনোয়ার ও তার সহযোগীকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করে। তাদের দু’জনের পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন জানিয়েছে পুলিশ। আগামী সোমবার রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। সোর্স আনোয়ারের বিরুদ্ধে মিরাজ মার্ডারসহ হত্যা সন্ত্রাস চাঁদাবাজি ও ভূমিদস্যুতার অভিযোগে অন্তত ১৭টি মামলা ও চারটি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। এ দিকে গ্রেফতারের পর কথিত আওয়ামী বাস্তুহারা লীগ নেতা আবদুল নবী লেদু প্রকাশ লেদু গুন্ডা ও কথিত অনলাইন দেশযোগ টিভির সাংবাদিক পরিচয়ধারি ইয়াবা ও পতিতা ব্যবসায়ি মাজেদুল ইসলাম ও তার কথিত স্ত্রী বিবি মরিয়ম থানা থেকে সোর্স আনোয়ারকে ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা তদবীর করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় লেদু গুন্ডা ওই কথিত অনলাইন টিভির উপদেষ্টা পরিচয় দিয়ে পুলিশকে শাসিয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু বায়েজিদ বোস্তামী থানার ওসি এবং পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ ব্যাপারে অনড় থাকায় তারা ব্যর্থ হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বায়েজিদ বোস্তামী থানার এসআই নুর নবী বলেন, ১৬ বছর বয়সী ওই পোশাক শ্রমিক বায়েজিদ বোস্তামী থানাধীন, ডেবারপাড় নিজ বাসা থেকে ফরেস্ট বাগান সংলগ্ন খালার বাসায় মুরগি নিয়ে যান। সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় ফেরার পথে আনোয়ার ও হেলাল ওই মেয়েটিকে একা পেয়ে অপহরণের পর ফরেস্ট বাগানে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে ফেলে রেখে যায়। তিনি জানান, খবর পাওয়ার পর ওসি প্রিটন সরকারের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থল থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালের ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টারে ভর্তি করে। বাদীর শনাক্ত মতে, ধর্ষক আনোয়ারকে তার ডেবারপাড়ের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেখানো মতো গ্রেফতার করা হয় সহযোগী হেলালকেও। তাদের দু’জনকে ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। আদালত আগামী সোমবার রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করেছেন। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, আনোয়ার হোসেনের পিতার নাম মৃত আবদুর রউফ। বায়েজিদ বোস্তামী থানাধীন, ডেবারপাড় জামতলা এলাকায় তার আবাস। সোর্স আনোয়ার এক সময় যুবদল করত। র‌্যাবের ক্রসফায়ারে নিহত যুবদল ক্যাডার পেটকাটা বাবরের সহযোগী ছিল সে। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর ভোল পাল্টে বায়েজিদ থানা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও কথিত বাস্তুহারা লীগ নেতা এবং হত্যা, ধর্ষণ, জমি দখল, ডাকাতি, অস্ত্র ব্যবসাসহ অন্তত ৪১ মামলার আসামী আব্দুল নবী লেদু প্রকাশ লেদু গুন্ডার শেল্টারে আসে। এরপর সোর্স আনোয়ার একের পর এক সরকারি জমি দখল করে নিজেই হয়ে যায়, আওয়ামী বাস্তুহারা লীগের বায়েজিদ বোস্তামী থানা কমিটির স্বঘোষিত সাধারণ সম্পাদক। হত্যা খুন ডাকাতি চাঁদাবাজি সরকারি জমি দখল-বেদখল থেকে শুরু করে হেন কোনো অপকর্ম নেই সোর্স আনোয়ার করে না। একই সঙ্গে পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করায় তাকে এলাকার লোকজন ‘সোর্স আনোয়ার’ হিসেবেই চিনে। তবে বায়েজিদ বোস্তামী থানার ওসি আনোয়ার এক সময় পুলিশের সোর্স থাকলেও এখন নেই। এদিকে দিন-দৃপুরে কিশোরী ধর্শক সোর্স আনোয়ারের ফাঁসির দাবীতে এলাকাবাসী ফুঁসে উঠে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে ধর্শক প্রতিরোধ কমিটির ব্যানারে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে মানববন্ধন করা হয়েছে। তবে প্রতিবাদকারি ও মামলার বাদীকে লেদু বাহিনী ভয়ভীতি ও হুমকি-ধমকি প্রদর্শণ করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিদিন লেদু বাহিনী বিশাল-বিশাল মোটর সাইকেলের বহর নিয়ে এলাকায় টহল দিয়ে মানুষের মাঝে ভীতি সৃষ্টি করে যাচ্ছে। পহেলা জুলাই সন্ধ্যায় অন্তত ৫০টি মোটর সাইকেলে করে দেড়শ জন সন্ত্রাসী লাঠি-বাঁশি ও মোটর সাইকেলে হাইড্রোলিক হর্ণ বাজিয়ে পুরো এলাকা চষে বেড়ায়। পরে লেদু গুন্ডা তার কালো টাকায় কেনা বিলাস বহুল গাড়ীতে ওই কথিত অনলাইন দেশযোগ টিভির মাজেদুল ইসলাম ও বিবি মরিয়মকে বসিয়ে ডেবার পাড় আনোয়ারের অফিসের সামনে দলবল নিয়ে অনেকক্ষন অবস্থান করে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তপ্ত পরিস্থিতি তথা টান-টান উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো সময় এলাকায় বড় ধরনের সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। ভুক্তভোগীরা বায়েজিদে লেদু বাহিনীর অপতৎপরতা বন্ধে প্রশাসনের সাহায্য কামনা করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved Nayaalo.com 2020