1. NewsDesk@gmail.com : News Desk : News Desk
  2. admin@nayaalo.com : Palash3700 :
  3. rakib@gmail.com : Admin : Rakib Musabbir
  4. bhairabkantho@gmail.com : saimur : rj saimur

নাসিরনগর থানার দালাল নামে পরিচিত, মাদক ও দেহ ব্যবসায়ীদের সহায়তাকারী আলা উদ্দিনের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল

  • আপডেট বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২০

স্টাপ রিপোর্টার ঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর থানার দালাল নামে পরিচিত, মাদক, দেহ ব্যবসায়ী ও অপরাদীদের প্রশ্রয় দাতা থানা পুলিশের নাম ভাঙ্গীয়ে বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে প্রতারনা পূর্বক মোটা অংকের টাকা আদায়কারী প্রতারক আলা উদ্দিনের বিরুদ্ধে প্রথমে থানায় ও পরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছে এক মহিলা। কুন্ডা ইউনিয়নের তুল্লাপাড়া গ্রামের ছোয়াব মিয়ার স্ত্রী সাহানারা বেগম বাদী হয়ে গত ১৩ অক্টোবর অভিযোগটি দাখিল করে। তাছাড়াও ২০১৭ সালের ২৫ অক্টোবর গোকর্ণ ইউনিয়নের নূরপুর গ্রামের প্রায় শতাদিক লোক মিলে প্রতার ও দালাল আলা উদ্দিনের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার বরাবর আরো একটি অভিযোগ দাখিল করেছিল। যাহার সিরিয়াল নং ২৯১৩/২য় । সাহানারা বেগমের অভিযোগে জানাগেছে তার ছেলে সাইফুল ইসলাম কলেজ মোড়ে মোবাইল সার্ভিসিং এর কাজ করে। আলা উদ্দিন একজন দালাল,প্রতারক, চরিত্রহীন এবং ক্রিমিনাল প্রকৃতির লোক। আলা উদ্দিন প্রায় সময়ই বিভিন্ন লোক জনের নিকট থেকে প্রতারনা করে টাকা পয়সা আদায় করে থাকে। ৩ অক্টোবর সাহানারার সম্পর্কে নাতিন নূরপুর গ্রামের নাছরিন বেগম তার পায়ের রড খুলতে নাসিরনগর মেঘনা মেডিকেল সেন্টারে গেলে ডাঃ নজরুল ইসলাম নাছরিনের পায়ের রগ কেটে পেলে। নাসরিন ঘটনাস্থলেই মারা যায়। পরে নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে নাসিরনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়। এ ঘটনার পর রাত অনুমান সাড়ে ১১ ঘটিকার সময় আলা উদ্দিন সাহানারার মোবাইল নাম্বারে ফোন দিয়ে ১ লক্ষ টাকা দাবী করে। টাকা না দিলে তার ছেলে সাইফুলকে উক্ত মামলায় আসামী করা হবে এবং পুলিশ সাইফুলকে ধরে নিয়ে যাবে বলে হুমকি দেয়। পরদিন সন্ধ্যা অনুমান ৭ ঘটিকার সময় প্রতারক আলা উদ্দিন থানার এ এস আই ইমাম হাসানকে সাইফুলের মোবাইল দোকানে পাঠিয়ে সাইফুলকে গ্রেফতারের হুমকি দেয়। ২০১৭ সালের নূরপুর গ্রামবাসির অভিযোগে দেখা গেছে আলা উদ্দিন নূরপুর গ্রামের ভিতর একটি মিনি পতিতালয় খুলে সেখানে বিভিন্ন বয়সী মেয়েদের দিয়ে দেহ ব্যবসা ও মাদক ব্যবসা করাত। তাছাড়াও এলাকা চোর ডাকাত মাদক ও দেহ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে থানা পুলিশের নাম ভাঙ্গীয়ে তাদের অজান্তে মোটা অংকের টাকা পয়সা আদায় করত। অবশেষে নিরুপায় হয়ে আলা উদ্দিনের ভয়ে সাহানারা তার ছেলে সাইফুল ও পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার জন্য জেলা পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved Nayaalo.com 2020
Site Customized By NewsTech.Com