মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:১৫ পূর্বাহ্ন

নদীগর্ভে বিলিন হতে যাচ্ছে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

  • আপডেট : বুধবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৬৯ বার পড়া হয়েছে

তানজিল হাসান,কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি।

কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলা গুজাদিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম চরকরনশী গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি দামীনি নদীর কবলে পড়ে নদী গর্ভে বিলিনের প্রহরগুনছে। বিদ্যালয়টি ১৯৭২ সালে পশ্চিম চরকরনশী গ্রামে দামীনি নদীর তীরে প্রতিষ্ঠিত হয়। যার ছোয়ায় পশ্চিম চরকরনশী গ্রামের হাজার হাজার মানুষের ভাগ্যে শিক্ষার অালো জলমল করে জ্বলে উঠেছিল। কিন্তু বর্তমান অবস্তার পরিপেক্ষিতে বলা যায় সে আলো এখন ধীরে ধীরে নিবতে বসেছে। এলকার লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় এ বিদ্যালয়ে বহু ছাত্র/ছাত্রী প্রথমিক শিক্ষা গ্রহনের সুযোগ পেয়েছে।

আরও বলে শুধু তাইনা, এ বিদ্যালয়ের ধারাবাহিকতার হাত ধরে অনেকেই অনেক জায়গায় সুযোগ করে নিয়েছে উচ্চ শিক্ষার এ ছাড়াও করিমগঞ্জ উপজেলা এ বিদ্যালয়টি ছিল অন্যতম। কিন্তু বর্তমান অবস্থা ক্রমশ অবনতির দিকেই এগোচ্ছে, আর এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে বেশি দিন লাগবেনা এ বিদ্যালয়টি দামীনি নদীর গর্ভে যেতে।
এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে কথা বলে জানা যায়, অাজ অনেক বছর ধরে এ বিদ্যালয়ের ভিতর বাহিরের অবস্থা খুবই সুচনীয় অবস্থায় আছে।

তারা আরও বলেন দামীনি নদীর ভাঙ্গনে বিদ্যালয় মাঠ, রাস্তা সব ভেঙ্গে যাওয়ায় স্বাভাবিক খেলাধুলা থেকে যেমন বঞ্চিত হচ্ছে স্কুলে ছাত্র/ছাত্রীরা তেমনি বঞ্চিত হচ্ছে প্রতিদিনের অনেক শিক্ষা থেকে। এলকার লোকজন মনেকরেন, ভালো কোন রাস্তার যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় ইচ্ছা থাকার সত্যেও, উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে সচরাচর দেখা মিলেনি শিক্ষা অফিসারদের।

তারা বলেন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের মুখে শুনেছি আমাদের বিদ্যালয়ের মাঠ, রাস্তা উন্নয়নের কথা কিন্তু এ পর্যন্ত কোন উন্নয়ন চোখে পড়েনি। তাই অামরা বাংলাদেশ সরকারের কাছে আকুল আবেদন জানাতে চাই সরকার যেন আমাদের অবহেলিত গ্রামের এ বিদ্যালয়টির মেরামত সহ সংস্করণ করে দেন। ফিরিয়ে দেয় বিদ্যালয়ের মাঠ, রাস্তা নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে। তবেই পুনরায় মাতাউচুকরে দাঁড়াতে পারবে এ পশ্চিম চরকরনশী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় । শিক্ষার সুযোগ পাবে বেশিরভাগ গরিব ও অসহায় মানুষ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved Nayaalo.com 2020