মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন

আমি মতি মেম্বারের ছোট ছেলে যতদিন বেঁচে থাকবো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সমর্থন করে যাবো- মাকসুদুর রহমান বাবু

  • আপডেট : রবিবার, ১৬ আগস্ট, ২০২০
  • ১১৮ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্ক ||
রাজধানী কদমতলির রায়েরবাগ বাসস্ট্যান্ডে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালন করেন বাবু প্লাজার স্বত্তাধিকারী মাকসুদুর রহমান বাবু। স্থানীয় হাজী মতিউর রহমান মেম্বারের ছোট ছেলে বাবু’র নিজস্ব অর্থায়নে অনুষ্ঠিত হয় এই আয়োজন। উক্ত অনুষ্ঠানে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও তবারক বিতরনের ব্যবস্থা করা হয়। বাবু প্লাজার সিইও সাংবাদিক সুমন চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাবু প্লাজার মালিক মাকসুদুর রহমান বাবু। বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভার প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কদমতলি থানার অফিসার ইনচার্জ জামাল উদ্দিন মীর, অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন ওসি (তদন্ত) মোঃ কামরুজ্জামান। উক্ত অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন কদমতলি থানা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি ও ঢাকা মহানগর কৃষক লীগের সভাপতি আব্দুস সালাম বাবু, বিশিষ্ট সমাজসেবক ও আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুবুর রহমান, আয়শা শপিং কমপ্লক্সের সভাপতি আব্দুল জলিল, বিশিষ্ট শ্রমিক নেতা গোলাম মাওলা, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সদস্য মনির হোসেন হাওলাদার, বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য কালাম সিকদার, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য দিদারুল ইসলাম দিদার, যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি সাংবাদিক ফারহাদ চৌধুরী, হাজি মতিউর রহমান মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব ওয়াছউদ্দিন নুরানী, শ্যামপুর সাব-রেজিস্টার অফিস দলিল লেখক ও স্ট্যাম্প ভেন্ডার কল্যান সমিতির সভাপতি মফিজ উদ্দিন মুন্সি। উক্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, আব্দুস সালাম বাবু, মনির হোসেন হাওলাদার, দিদারুল ইসলাম দিদার, সাংবাদিক ফারহাদ চৌধুরী, আলহাজ্ব ওয়াছউদ্দিন নুরানী। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করে তারা দেশের অপূরণীয় ক্ষতি করেছিল! যারা ভেবেছিল এ দেশের উন্নয়ন আর কোনদিন হবে না তাদের সেই ধারণাকে আজ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পূর্ণ পাল্টে দিয়েছেন। দেশ আজ অনেক উন্নত লাভ করেছে। সভাপতি তার বক্তব্যে বলেন, আমি একজন মুজিব সৈনিক । শেখ মুজিবর রহমান এ দেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি, তাই আমি মতি মেম্বারের ছোট ছেলে যতদিন বেঁচে থাকবো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সমর্থন করে যাবো। তিনি আরও বলেন, আমার সাধ্য অনুযায়ী নিজ অর্থায়নে এই সকল আয়োজন করে যাবো সব সময়, ইনশাল্লাহ। পরিশেষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুস্বাস্থ্যের জন্য দোয়ার দরখাস্ত করে সভাপতি তার বক্তব্য শেষ করেন। দুপুর ২ টার সময় পবিত্র কুরআন থেকে তেলোয়াতের মাধ্যমে আলোচনা সভা শুরু হয়। কুরআন তেলোয়াত করেন বায়তুস সালাম জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন মোঃ হাসান, আলোচনা শেষে বায়তুস সালাম জামে মসজিদের ইমাম দোয়া পরিচালনা করেন। এরপর দুঃস্থদের মাঝে তবারক বিতরণ করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved Nayaalo.com 2020