1. admin@nayaalo.com : Ashrafhabib :
  2. nayaalo.com@gmail.com : News Desk : News Desk
বাস বন্ধ,তাই কাউন্টারে বসে পান সিগারেট বিক্রি করি! - Nayaalo
শিরোনাম
ভৈরবে পথফুল ফাউন্ডেশনের ৫ম বর্ষপূর্তি উৎযাপন। সৌদি প্রবাসী ঐক্য পরিষদ, ভৈরব উপজেলা বি.এন.পি’র উদ্যোগে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ। কাউন্সিল অব কনজিউমার রাইটস বাংলাদেশ (সিআরবি) মেলান্দহ হতদরিদ্রদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরন ও পরিচিতি অনুষ্ঠান গোল্ডেন লাইফ ইন্সুরেন্সের উপদেষ্টা এম.তৌহিদুল আলম এর সাথে ভৈরব সার্ভিসিং সেলের কর্মকর্তাদের ২০২৩ইং সালের শুভেচ্ছা ও মতবিনিময়। কুলিয়ারচরে অলিভ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের শুভ উদ্বোধন উপলক্ষে হতদরিদ্র বৃদ্ধ ও বৃদ্ধাদের মাঝে হাটার লাটি বিতরণ। নাগর ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ, কালিকা প্রসাদ এর কার্যালয় উদ্বোধন ও পরিচিতি সভা। আসন্ন ঢাকা-১০ আসনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার মাঝি হয়ে জনগণের পাশে থাকতে চায় নজরুল বেপারী ভৈরবে ১০ বছরের সংসার জীবনে অবশেষে স্বামীর হাতে মৃত্যু!স্বামীসহ আটক ৩ জন। ভৈরবে নানা আয়োজনে মোহনা টিভির ১৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ১১ নভেম্বর

বাস বন্ধ,তাই কাউন্টারে বসে পান সিগারেট বিক্রি করি!

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ৮ জুলাই, ২০২১
  • ৩১৮ জন দেখেছেন
কাউন্টার মাস্টার আজম খাঁন

অফিস ডেস্ক:
কিশোরগঞ্জ ভৈরব উপজেলায় কালিকা প্রসাদ ইউনিয়নে বাস বন্ধ থাকার কারণে কাউন্টার চেয়ার টেবিলে বসে পান,সিগারেট বিক্রয় করছেন আজম খাঁন নামক এক ব্যক্তি।তিনি বলেন আমি যাতায়াত (প্রা:),যাতায়াত পরিবহণ, যাতায়াত সুপার ও অন্যন্যা সুপার কাউন্টার মাষ্টার। দীর্ঘদিন বাস পরিবহণ বন্ধ থাকায় সংসার চালানোর দ্বায়ে কোন উপায় না পেয়ে বসে বসে পান,সিগারেট বিক্রয় করতেছি।শুধু আমি নয় আমার মতো আরো অনেকেই অনেক কষ্টে জীবন অতিবাহীত করতেছে।

একাধিক বাস চালকের সাথে কথা বললে একজন বলেন আমরা বাসের ড্রাইভার বাস চললে প্রতিদিনকার টাকা প্রতিদিন পায়, কিন্তু দীর্ঘদিন বাস বন্ধ,এখন আমরা আমাদের সংসার ঠিক মতো চালাতে পারতেছি না,তিনবেলা ঠিক মতো খেতে পারছি না,একবেলা খেলে দুইবেলা না খেয়ে থাকতে হয়।একজন বাসের হেলপার বলেন বাস বন্ধ হওয়ার পর কোন উপায় না পাইয়া রিকসা চালাই, রিকসা চালাইতে গেলেও শান্তি নাই পুলিশে রাস্তাঘাটে বিরক্ত করে এবার কন আমরা কি কইরা জীবন চালামু।

কিশোরগঞ্জের ভৈরব শহরাঞ্চল এলাকা হলেও গ্রাম এলাকায় এখনো ‘ভয়ঙ্কর’ হয়ে উঠেনি মহামারি করোনা। বিশেষ করে এলাকার গ্রামগুলোতে এখনো করোনা ব্যাপকভাবে সংক্রমণ করেনি। নগর ও আশপাশ এলাকা কেন্দ্রিক করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেশি। শহরের পরিস্থিতি দেখে উদ্বিগ্ন বিশেষজ্ঞরাও। তারা জানিয়েছেন- গ্রামকে করোনার হাত থেকে রক্ষা করতে
হলে এখনই করোনার ব্যাপক ট্রান্সমিশন কমাতে হবে। বিশেষ করে গ্রামের মানুষকে শহর থেকে বিচ্ছিন্ন করতে হবে। উত্তরাঞ্চলের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে গ্রামে গ্রামে করোনা তাণ্ডব চালাচ্ছে।কিশোরগঞ্জ এখনও তার ব্যতিক্রম নয়।
কিশোরগঞ্জে করোনা সংক্রমণ যা হচ্ছে বেশীর ভাগই শহর কেন্দ্রিক। আর শহর কেন্দ্রিক করোনার ভয়াবহ ট্রান্সমিশনের জন্য মানুষের অবাধে চলাচলকে দায়ী করা হচ্ছে। কারণ-কিশোরগঞ্জ, ভৈরব শহর এখন আগের চেয়ে অনেক ব্যস্ত শহর। মানুষের গিজ-গিজ বেড়েছে। এই অবস্থায় সঠিকভাবে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। শহরের তুলনায় গ্রামে মাস্ক ব্যবহারে চরম অনীহা।


ভৈরব উপজেলা অফিসার লুবনা ফারজানা, উপ-সহকারী কর্মকর্তা (ভূমি) হিমাদ্রী খীসা, ভৈরব সার্কেল অফিসার রেজুওয়ান দিপু, ভৈরব থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃশাহিনসহ প্রশাসনের সর্বস্তরের সবাই প্রতিদিন কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।এতো পরিশ্রম করার পরও কিশোরগঞ্জ, ভৈরব শহরের পরিস্থিতি তেমন একটা নিয়ন্ত্রণে আসছে না।
এজন্য হয়তো কিছুদিনের মধ্যে করোনার লাল তালিকায় চলে আসবে কিশোরগঞ্জ জেলা। কিশোরগঞ্জের ভৈরব হচ্ছে তিনটি বিভাগের মিডেল পয়েন্ট যেমন সিলেট বিভাগ,ঢাকা বিভাগ ও ময়ময়নসিংহ বিভাগ।আশেপাশে বেশীরভাগই করোনার সংক্রমণ শহর কেন্দ্রিক বেশি।

গ্রামের মানুষের মধ্যে সংক্রমণ যেমন কম তেমনি করোনা নিয়ে ভয়ও কম।আর শহর থেকে গ্রামে গিয়ে সংক্রমণের হারও কম।

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর...
© All rights reserved © 2022 নায়াআলো ডটকম
Developed By HM.SHAMSUDDIN