1. admin@nayaalo.com : Ashrafhabib :
  2. nayaalo.com@gmail.com : News Desk : News Desk
নিকলী উপজেলায় স্কুল মাঠে গরুর হাট! - Nayaalo
শিরোনাম
বিএনপি নেতা শরীফুল আলম জামিনে মুক্তি। ভৈরব কেয়ার জেনারেল হাসপাতাল-এর পক্ষ থেকে যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মো.মালেক মিয়াকে শুভেচ্ছাজ্ঞাপন। ভৈরবে নিষিদ্ধ পলিথিন উৎপাদন করার দায়ে চার প্রতিষ্ঠানকে ৫ লাখ ২ হাজার টাকা অর্থদন্ড! ভাষা শহীদ‍দের প্রতি নিসচা ভৈরব শাখার বিনম্র শ্রদ্ধা ভাষা শহীদদ‍ের প্রতি “বাংলাদেশ প্রাইভেট ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক ওনার্স এসোসিয়েশন” ভৈরব উপজেলা শাখার পক্ষ থেকে বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলী। “বাংলাদেশ মসকুইটো কয়েল ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশন নব গঠিত সভাপতি মো.কামরুল হাসান, সাধারণ সম্পাদক মো.নুরুজ্জামান। নিরাপদ সড়ক চাই ভৈরব শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষনা।সভাপতি এসএম বাকী বিল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলাল উদ্দিন। পিরিজকান্দি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় বার্ষিক ক্রীড়া ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত। ভৈরবে উদ্বোধন করবেন পৌর পার্ক এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী পাপন কে নাগরিক সংবর্ধনা। নিকলী উপজেলায় স্কুল মাঠে গরুর হাট!

নিকলী উপজেলায় স্কুল মাঠে গরুর হাট!

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৮ জন দেখেছেন

শিক্ষার স্বার্থ জলাঞ্জলি প্রশাসন গরু হাটের পক্ষে! হাট নয় যেনো প্রভাবশালীর টাকার গাছ

নিজেস্ব প্রতিবেদকঃ
কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার গুপিরায়ের বাজারের নামে সাজনপুর ও আঠারবাড়িয়ার দুই গ্রামের ১১ সমাজ মিলে ইজারা নিয়ে আসে গরুর হাট। ২০০৯ সাল থেকে সপ্তাহে বুধবার বসে হাটটি। উপজেলার ২৩নং আঠার বাড়িয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে, মূল ফটক ও তার আশেপাশে রাস্তার উপরে দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে বসছে গরুর হাট। কোমলমতি শিশুদের পড়াশোনার ব্যাঘাত ঘটলেও টনক নড়ছে না প্রশাসনের। স্কুলের জায়টি মুলত অপিত সম্পত্তি, যা ভূমি অফিসের সূত্রে ১/১ নং খতিয়ান ভুক্ত গেজেটে উল্লেখ রয়েছে। হাটের দিনে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি থাকে অতি নগন্য। আগের তুলনায় হাট বসার পর থেকে শিক্ষার মানও অনেকটা ব্যাহত! অভিযোগ উঠেছে সরেজমিনে। প্রশাসনের ভূমিকাও রহস্যজনক!

শিক্ষার জাতীয় স্বার্থ বিবেচনায় ৩০ ডিসেম্বর, ২০২২ সালে সংবাদপত্রে খবর প্রকাশ করায় ৭০টি পরিবারের সামাজিক টাকা আটকে রেখেছে সুবিধাভোগীরা। যার এখনো প্রতিকার মেলেনি। এছাড়াও স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন দপ্তর থেকে হাট সরানোর আশ্বাস দিলেও বাস্তবায়ন না হওয়ায় আরো বেপোরোয়া স্বার্থান্বেষী মহল। সুবিধাবঞ্চিতদের অভিযোগ, প্রশাসন ম্যানেজ করার নামে মোটা অঙ্কের অর্থ আত্মসাৎ করছেন ইজারাদার, গরু হাটের উপদেষ্টাসহ হাতেগোনা কতকজন।
জানা যায়, গুপিরায় বাজারের হাটটি শুরু থেকেই এলাকার জনগণের সামাজিক টাকায় ব্যক্তির নামে ইজারায় আনা হলেও হাটের নিজস্ব জায়গা না থাকায় বিদ্যালয় মাঠেই বসে। দিনে দিনে এটি জেলার সবচেয়ে বড় গরু হাটে পরিণত হয়েছে। ফলে শুধু হাটের দিন নয়, বৃহস্পতিবার এমনকি শনিবার পর্যন্ত মাঠের আশপাশে দুর্গন্ধ লেগে থাকে। তা ছাড়াও এখানে ইউনিয়ন পরিষদের স্থায়ী অফিসও। হাটের দিন চেয়ারম্যান পরিষদে না থাকায় সেবামূলক বেশ কিছু কাজও পিছিয়ে দেয়া হয় বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।
প্রশাসনের নামেও সারা বছরই চলে ওপেন বাণিজ্য। গত ২০২৩ সালে হাটটি ২১ লক্ষ ৬২ হাজার টাকা ইজারা হলেও খরচ দেখানো হয়েছিল ৫৩ লক্ষ। হাটের ইজারাদার আলম মিয়া ও উপদেষ্টা কামরুল ইসলাম মানিক দু’জনেই ক্ষমতাসীন দলের সদস্য। এদের বিরুদ্ধে প্রমাণসহ অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ থাকলেও বরাবরই তা অস্বীকার করে আসছেন। অভিযোগ উঠেছে প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই এই অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

দেশের বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকায় এ বিষয়ে খবর প্রকাশ হলে স্কুলের মূল ফটক থেকে ইউনিয়ন পরিষদের সীমানা পর্যন্ত কাপড়ের তৈরি বাউন্ডারি দেয়া হয়। কোটি টাকার অধিক গরু হাটের ফান্ডের নামে নিকটস্থ অগ্রণী ব্যাংকের এজেন্ট শাখায় তিন ব্যক্তির নামে জমা থাকলেও জায়গা কিনার নামে চলে তালবাহানা। এতে সুবিধা ভোগ করছেন ব্যাংক পরিচালক ইজারাদার আলমসহ হাতেগোনা কয়েকজন। এদের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করলেই চলে উল্টো সামাজিক নির্যাতন। এটা গরুর হাট নয় যেনো সুবিধাভোগীদের টাকার গাছ। অসাধু রাজনৈতিক ব্যক্তি, অসাধু গণমাধ্যমকর্মীদের ম্যানেজ নামেও সপ্তাহিক খরচের খাত বড় করে দেখানো হয়। সিডিউল বানিজ্যের অভিযোগ। এমন মৌখিক বিস্তর অভিযোগ সরেজমিনে দীর্ঘদিন থেকেই কমিটির একাংশের। এতে করে গত ১৫ বছরে একাধিক লোক শূন্য থেকে এখন কোটি কোটি টাকার মালিক। ১১ সমাজ নামের এখানে যেনো একটি অসামাজিক রাষ্ট্র তৈরি হয়েছে! আর এসবের নিয়ন্ত্রণকারী রাজনৈতিক নেতারা।

নিকলী উপজেলার আঠারবাড়ীয়া এলাকার ৭০টি সুবিধাবঞ্চিত পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা হলে তারা তাদের নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে ধরেন। আফসোস করে বলেন, এ কেমন আইন এই এলাকায়! যেখানে যৌথভাবে আমাদের টাকায় গড়ে তোলা গরুর হাট, সেখানে আমরা সুবিধাবঞ্চিত।

এলাকার সাধারণ জনগনও তাদের কাছে জিম্মি। পত্রিকায় লিখে কিছু হয় না। আগে প্রতি গরুর খাজনা বাবদ ক্রেতা ও বিক্রেতার কাছ থেকে যখন ১০০ টাকা করে নেয়া হতো, তখন ১৫ হাজার থেকে শুরু করে ১৮ হাজার টাকা পেত প্রতি সমাজ। এখন দ্বিগুণ আদায়ের পরে পাচ্ছে মাত্র ৬ থেকে সর্বোচ্চ ১০ হাজার। তাও আমাদের ৭০টি পরিবারকে বাদ দিয়ে। তাদের দাবি, ১ থেকে দেড় লাখ টাকা সপ্তাহে বন্টন করা হলেও ৪ লাখের কাছাকাছি টাকা উঠে। বাকি টাকা কয়েকজনের পকেটে চলে যায়। কেউ এসব অনিয়মের প্রতিবাদ করলেই তাদের টাকা আটকে দেয়া হয়। কঠিন বিচারও করা হয়। এই ভয়ে এখন আর কেউ প্রতিবাদের সাহস দেখায় না।
‘স্কুলের মাঠে দীর্ঘদিন ধরে গরুর হাট’ এ সত্য পত্রিকায় প্রকাশের পর প্রায় বছরের কাছাকাছি সময় ধরে আমাদের টাকা আঁটকে দিয়েছে সুবিধাভোগীরা। ইজারাদার সাংবাদিককে ০১৭১৫ ০৩৫৬০৫ নম্বর থেকে একাধিকবার কুপিয়ে হত্যার হুমকি দিয়েছে। গত ১৬ এপ্রিল, ২০২৩ তারিখে বিকাল ৩ টা ২৬ মিনিটে এ সত্য ঘটনা ভাইরাল হলেও তাদের কোনো শাস্তি হয়নি। ওরা সৎ আর প্রতিবাদীকে ম্যানেজ না করতে পারলে তথ্য না দিয়ে বরং উল্টো সাজানো অভিযোগে নির্যাতন চালায়। আমাদের সামাজিক ৭০টি পরিবারের সদস্যদের গরু হাটের ন্যায্য টাকা না দিয়ে এখনও আটকে রেখেছে। আমরা এর কঠিন বিচারের দাবী জানাই।
বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক আব্দুল আউয়ালের বক্তব্য, উপর মহল এই বিষয়ে সম্পূর্ণ অবগত। কয়েক দফায় সমস্যা সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হয়েছে। তা ছাড়া তদন্তও হয়েছে একাধিকবার। এমনকি এক সুযোগে উপজেলা আ’লীগের সভাপতিসহ আনুমানিক ২০ নেতাকর্মী স্কুলের মাঠে আগমন উপলক্ষে মাননীয় সংসদ সদস্যের জানতে চাওয়ার জবাবের এক সুযোগে স্থানীয় সংসদকেও যাবতীয় সমস্যার কথা তুলে ধরা হয়েছে বলে তিনি জানান। কোনো প্রতিকার নেই বলেও তিনি আফসোস করেন।

জারইতলা ভূমি অফিসের নায়েব মুহাম্মদ পারভেজ হোসেনকে বলা হয় ১/১ নং খতিয়ানের স্কুল মাঠের জায়গায় গরুর হাট বসার বিষয়ে তিনি অবগত কি না? জবাবে বলেন, এসিল্যান্ড স্যার বিষয়টি নিয়ে আগেই অবগত। তবে নতুন করে ইউএনও মহোদয় গতকাল এই বিষয়ে জানতে চেয়েছিলেন।

নিকলী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাহ নেওয়াজ বলেন, আমি বিষয়টি নিয়ে উপর মহলে কথা বলব। এখানে যোগদান করার পর কেউ এই বিষয়ে আমাকে জানাননি। শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশের লক্ষ্যে তিনি ব্যবস্থা নিবেন বলেও জানান।

বিদ্যালয় মাঠে গরুর হাট, প্রশাসন ম্যানেজ, প্রতিবাদ করায় অধিকার বঞ্চিত ৭০টি পরিবার। এ বিষয়ে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মোছাঃ পাপিয়া আক্তার বলেন, বিষয়টি তার পক্ষ থেকে খোঁজ নিয়ে খতিয়ে দেখা হবে। নিয়ম মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়ার কথাও তিনি জানান।

সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর...
© All rights reserved © 2022 নায়াআলো ডটকম
Developed By HM.SHAMSUDDIN